Category

ট্রেন্ডস

Category

Reading Time: 3 minutes বাড়ি নির্মাণের পূর্বে বাড়ির নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কিছু প্রয়োজনীয় পরীক্ষা করে নেয়া অত্যন্ত জরুরি। নির্মাণ কাজ শুরুর আগে এই পরীক্ষাগুলো করার ফলে উক্ত এলাকার কাঠামোগত ভিত্তি এবং কন্সট্রাকশন সাইটের জন্য জায়গাটা কতটা উপযুক্ত তা নির্ধারণ করা সম্ভব হয়। কাঠামো ডিজাইন করা থেকে শুরু করে, ফাউন্ডেশন এবং স্ল্যাব ডিজাইন ইত্যাদি কাজের জন্য এই তথ্য গুলো বেশ সহায়তা করে থাকে। আর এ সকল তথ্য অনুসন্ধান করেই সয়েল ইঞ্জিনিয়াররা নির্ণয় করতে পারেন যে, মাটিতে ঘনত্ব অথবা উক্ত স্থানে বিদ্যমান বিষাক্ত পদার্থ বাড়ি নির্মাণের জন্য উপযুক্ত কিনা। আর তাই পরবর্তী সময়ে এসব সমস্যার সম্মুখীন যেন হতে না হয়, তাই বাড়ি নির্মাণের পূর্বে করণীয় পরীক্ষা সমূহ সম্পর্কে ধারণা থাকা জরুরি।  আর্দ্রতা পরীক্ষা করা বাড়ি নির্মাণের সময় মাটিতে অতিরিক্ত আর্দ্রতার উপস্থিতিতে মাটির  বিস্তার লাভ করা অথবা ব্লক হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। আর তাই, মাটিতে পানির ওজন নির্ধারণের জন্য নির্মাণের আগে আর্দ্রতা পরীক্ষা করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। যে প্রক্রিয়া সমূহের মাধ্যমে নির্মাণের আগে এই পরীক্ষাগুলো করানো হয় –    ওভেন…

Reading Time: 5 minutes সঠিক জমিতে বিনিয়োগ করার বিষয়ে কথা বলার আগে যদি আমরা বিগত দশকগুলোতে জমির দাম এর দিকে একটু তাকাই, তাহলে কোনরকম দ্বিধা ছাড়াই বলতে হবে, বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে জমিতে বিনিয়োগ করা বেশ লাভজনক একটি সিদ্ধান্ত। গত কয়েক বছরে ঢাকার জমিগুলোর মূল্য যতটা বেড়েছে তা অন্যান্য উন্নয়নশীল দেশের তুলনায় তুলনামূলকভাবে বেশিই বলা যায়। তবে এই চিত্র শুধু ঢাকাকে ঘিরেই নয়, বরং দ্রুত নগরায়নের ফলে ঢাকার আশেপাশের এলাকা গুলোর জমির মূল্যও এখন ঊর্ধ্বমুখী। আর তাই একজন বিনিয়োগকারী হিসেবে আপনি ভাবতেই পারেন, জমিতে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ঢাকা নাকি এর আশেপাশের এলাকা, কোন জায়গাটি হবে লাভজনক? তবে এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজে পাওয়ার আগে আপনাকে বিনিয়োগের লক্ষ্য সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা রাখতে হবে। আপনি কেন বিনিয়োগ করার কথা ভাবছেন এবং কী উদ্দেশ্যে এই বিনিয়োগের সিদ্ধান্তও নিচ্ছেন,  সে বিষয়ে আগে থেকেই পরিকল্পনা থাকলে বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নেয়া আরও সহজ হয়ে যাবে। আর তাই আপনার বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত আরও সহজ করতে এবং বিনিয়োগের জন্য সঠিক এলাকার জমি বেছে নিতেই আজকের ব্লগে থাকছে এ…

Reading Time: 3 minutes বাড়ি নির্মাণের ক্ষেত্রে যে পরিমাণ ঝক্কি-ঝামেলা পোহাতে হয় সহজে কেউ বাড়ি নির্মাণ করার মত কাজে হাত দিবে না। তারা অনায়াসে বেছে নিবে বাসা সংস্কারের উপায়। কিন্তু, এমন অনেক বিষয় রয়েছে যেখানে বাসা সংস্কার বা পুনর্নির্মাণের চেয়ে বাড়ি সম্পূর্ণ পুনর্নির্মাণের পথ বেছে নেওয়া যেমন উত্তম তেমনি লাভজনক। এখন প্রশ্ন হচ্ছে বাড়ি পুনর্নির্মাণের কারণ কী কী?  ফাউন্ডেশন  বাড়ি পুনর্নির্মাণের ক্ষেত্রে ফাউন্ডেশন-সম্পর্কিত বিষয়গুলো সবার কাছেই গুরুত্বপূর্ণ হওয়া উচিত। আপনার ফাউন্ডেশনে যদি কোন ত্রুটি থেকে থাকে বা সংস্কার করা প্রয়োজন হয় এক্ষেত্রে বাড়ি পুনর্নির্মাণের কথা বিবেচনা করুন। কারণ, ফাউন্ডেশন হচ্ছে একটি ভবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান যা পুরো কাঠামোকে এক সাথে ধরে রাখে এবং এটা কতটা সময় স্থায়ী হবে সেটাও নির্ধারণ করে থাকে। এছাড়াও, যদি ফাউন্ডেশনের বিভিন্ন জায়গায় পানির লিকেজ বা মোল্ড থাকে তাহলে আপনি কেবল সেই অংশটি সংস্কারের পরিবর্তে ফাউন্ডেশন সম্পূর্ণরূপে পুনর্নির্মাণ করতে পারেন। এই সমস্ত সমস্যা থাকলে ফাউন্ডেশন পুনর্নির্মাণ করা খুব জরুরী নাহলে সময়ের সাথে সাথে এটি ভবনের কাঠামোকে প্রভাবিত করবে। বড় কোন…

Reading Time: 6 minutes চলন্ত ট্রেনের জানালা দিয়ে তাকিয়ে মাইলের পর মাইল অনেকবার পাড়ি দেয়া হয়েছে । কখনো উদাসীন হয়ে ভেবেছি পেছনে ফেলে আসা জীবনটাকে, কখনো ভেবেছি এগিয়ে আসা ভবিষ্যৎ নিয়ে। ট্রেনের গন্তব্যের সাথে খুঁজে ফিরেছি নিজেও গন্তব্য। দূরের যাত্রাগুলো ক্লান্তিকর হলেও ট্রেন যাত্রাগুলো বরাবরই হয়েছে আনন্দের। মাইলের পর মাইল পাড়ি দেয়া হয়েছে জানালায় চোখ রেখে। পরিবার কিংবা বন্ধুবান্ধব বা কখনো একা ট্রেনে যাত্রারত সময়টা কেটেছে আড্ডা, গল্প বা গানে! ট্রেনের সবকিছুই আসলে ভালো লাগার। ট্রেনের ভেতরের স্থাপত্যশৈলী, বসার ব্যবস্থা, কেবিন কিংবা ট্রেনের মজাদার নাস্তা সবকিছুই বেশ সাজানো গোছানো। কেবল ট্রেনেই নয়, এই ট্রেনগুলো যেখানে থামে সেই স্টেশনের স্থাপত্যশৈলীও ভিন্ন এবং অদ্ভুত সুন্দর। আজকে এমনই এক স্টেশনের গল্প বলবো। যা দেশের অন্যান্য স্টেশনের থেকে সবদিক থেকে আলাদা আর সেরা! চলুন শুরু করি কমলাপুর রেলস্টেশনের স্থাপত্যশৈলী নিয়ে আজকের ব্লগ!  ইতিহাস  বাংলাদেশের প্রথম রেলস্টেশন হলো কুষ্টিয়ার জগতি এবং সবচেয়ে বড় রেলওয়ে জংশন ঈশ্বরদী। তবে বাংলাদেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং বৃহত্তম রেলওয়ে স্টেশন হচ্ছে ঢাকার কমলাপুর স্টেশন। ব্রিটিশ…

Reading Time: 4 minutes আধুনিক স্থাপত্যশৈলীতে কিছুটা পরিবর্তন আনতে বায়োফিলিক ডিজাইন হতে পারে নান্দনিকতার নতুন এক ধাপ। স্থাপত্যে প্রকৃতির ছোঁয়া এবং সবুজের উপস্থিতি  এই ডিজাইনের অন্যতম প্রধান একটি উপাদান। বায়োফিলিক স্থাপত্যে যে বিষয়গুলো সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য পায়, তা হল বাড়ির বিভিন্ন কর্নারে থাকা ছোট ছোট প্ল্যান্টের পট, ঘরের ভেতর প্রাকৃতিক আলোর প্রবেশ এবং পুরো ঘর জুড়ে থাকা প্রকৃতির রঙের থিম। আর তাই এক কথায় বলতে গেলে বায়োফিলিক ডিজাইন মানেই হল যে স্থাপত্যে থাকবে প্রকৃতির উপস্থিতি, সাথে বাতাস চলাচলের সুব্যবস্থা, গাছপালা এবং অন্যান্য প্রাকৃতিক অনুষঙ্গের ছোঁয়া, যা ভবনের ভেতরের পরিবেশকে আরও প্রাণবন্ত করে তুলবে।    রিয়েল এস্টেট স্থাপত্যে সবুজের উপস্থিতি  ৯০ এর দশকের মাঝামাঝি থেকে ২০০০ সালের শুরুর দিক পর্যন্ত সময়ে স্থাপত্য শিল্পে এক ধরনের পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়। যা মূলত রিয়েল এস্টেট স্থাপত্যে প্রকৃতির উপস্থিতিকে অনুপ্রাণিত করে। এই ডিজাইনের মূল লক্ষ্যই হল পরিবেশবান্ধব এবং বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী উপায়ে  ভবনের অবকাঠামো তৈরি করা। বায়োফিলিক ডিজাইনে ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে এই বিষয়টি আধুনিক স্থাপত্যশৈলীকে আরও এক ধাপ এগিয়ে নিয়ে…

Reading Time: 4 minutes প্রপার্টিতে বিনিয়োগের জন্য ঢাকায় সম্ভাব্য এলাকার কোন অভাব নেই। এসব এলাকায় বসবাসের মাধ্যমে আপনি অনেক ধরনের সুযোগ-সুবিধাই পাবেন। আর তাই অন্য যেকোনো সেক্টরের তুলনায় রিয়েল এস্টেট খাতে বিনিয়োগ করা যেমন লাভজনক, তেমনি সময়োপযোগী। আর এক্ষেত্রে প্রপার্টিতে বিনিয়োগের জন্য ঢাকার সম্ভাব্য এলাকাসমূহ কোনগুলো, সে বিষয়েও বিস্তারিত ধারণা থাকা প্রয়োজন।    খুব সহজ করে যদি বলি, ব্যাংকিং সেক্টর, স্টক মার্কেট-সহ অন্যান্য যেকোনো সেক্টরের তুলনায় রিয়েল এস্টেট খাতের স্থায়িত্ব যেমন বেশি, তেমনি স্থিতিশীলও বটে। কেননা প্রপার্টির মতো স্থাবর সম্পত্তি গুলোর মূল্য খুব সহজে যেমন পরিবর্তিত হয় না, তেমনি হুট করে আবার ওঠানামাও করে না। তবে রিয়েল এস্টেট বিনিয়োগের জন্য আপনাকে অত্যন্ত দক্ষতার সাথে এলাকা নির্বাচন করা প্রয়োজন। অন্যথায় এই বিনিয়োগ সফল নাও হতে পারে।  ২০ বছর আগেও, বারিধারা এবং গুলশান এলাকায় বিনিয়োগ বেশ লাভজনক বলেই ধরে নেয়া হতো। কেননা সে সময় থেকে এখন পর্যন্ত এই এলাকা গুলোর জমির দাম যথাক্রমে ৭০০% এবং ১০৩৬% বেড়ে গিয়েছে।  তবে বর্তমান সময়ে এসে বিচক্ষণ বিনিয়োগকারীরা কখনোই এই চুক্তিতে…

Reading Time: 3 minutes বসবাসের জন্য কেবল মনের মত অ্যাপার্টমেন্ট পেলেই হয় না। পছন্দ হওয়া চাই আশেপাশের এলাকাসহ আরও অনেক কিছু। এবারের আগস্ট ২০২১ এর সেরা প্রপার্টি তালিকায় জায়গা করে নিয়েছে এমনই কিছু এলাকা। যেখানে অ্যাপার্টমেন্ট কেনা যেন অনেকেরই স্বপ্ন। তালিকায় থাকা প্রত্যেকটি অ্যাপার্টমেন্ট দেখতে যেমন দারুণ তেমনি দামটাও যুক্তিসংগত।  স্টাইলিশ ফিটিংস, মডার্ন ইন্টেরিয়র ও বেসিক সার্ভিস সহ এই অ্যাপার্টমেন্টগুলোর একটি হতে পারে আপনার স্বপ্নের ঠিকানা। তাই ভালো করতে জানতে দেখে দিন আজকের সেরা এলাকার সেরা কয়েকটি অ্যাপার্টমেন্ট! আফতাবনগর এলাকায় ২,৩৭৭ বর্গফুটের অসাধারণ একটি অ্যাপার্টমেন্ট বিক্রয় করা হবে!  আফতাবনগরের বি ব্লকে অবস্থিত ২,৩৭৭ স্কয়ার ফিটের দুর্দান্ত একটি ব্র্যান্ড নিউ অ্যাপার্টমেন্ট। পুরো পরিবার নিয়ে বসবাসের জন্য ৪ বেড ও ৪ বাথের এই অ্যাপার্টমেন্টটি কিন্তু একদম পারফেক্ট। আরো অবাক করা বিষয় হচ্ছে, প্রতিটি বেডের সাথেই রয়েছে বারান্দা আর এটাচড বাথ। সাথে রয়েছে বিশাল পরিসরের একটি ডাইনিং স্পেস আর তার ঠিক পরেই চমৎকার একটি ড্রয়িং স্পেস। কিচেন স্পেসটিও বেশ ছিমছাম। তবে এই অ্যাপার্টমেন্টটির সবচেয়ে আকর্ষণীয় দিক হচ্ছে…

Reading Time: 3 minutes শহরে গাছের ক্যানোপি এর উপস্থিতি যেকোন আবাসিক এলাকার সৌন্দর্য ইতিবাচকভাবে বাড়িয়ে তুলতে পারে। শহরের মানুষের স্বাস্থ্যগত বিকাশের পাশাপাশি পশুপাখির আবাস্থল হিসেবেও এই ক্যানোপি গুলো বেশ উপকারী। জনসংখ্যার পার্থক্য এবং সাংস্কৃতিক  ভিন্নতা যেকোন আবাসিক এলাকায় গাছের ক্যানোপি তৈরি  করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।  বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, গাছের ক্যানোপির কারণে প্রপার্টির মূল্য বৃদ্ধিও হয়েছে  লক্ষ করার মতো। অন্যান্য দেশের মতো পরিবেশবান্ধব বাংলাদেশ গড়ে তুলতে এবং স্বাস্থ্য জনিত কারণে এবং রিয়েল এস্টেটে গাছের ক্যানোপির প্রভাব কেমন হতে পারে সে সম্পর্কে  চলুন জেনে নেয়া যাক।      তাপমাত্রা স্থিতিশীল রাখতে সহায়ক  গ্রামের চেয়ে শহরের তাপমাত্রার পরিমাণ বরাবরের মতোই বেশি । শহরে দূষণের মাত্রাও যেমন থাকে, তেমনি বড় বড় দালানকোঠা এবং যানবাহনের ভিড়ে তাপমাত্রাতেও তুলনামুলকভাবে ভিন্নতা থাকে বেশি। আর এক্ষেত্রে গাছের ক্যানোপি বেশ উপকারী হতে পারে। অতিরিক্ত গরম আবহাওয়ায় ছায়া হয়ে শীতল অনুভূতি দিতে কাজ করবে সারি সারি গাছের । এই গাছের ছাউনির কারণে যে ছায়া পাওয়া সম্ভব তা তাপমাত্রা গড়ে ৩ থেকে ১০ ডিগ্রি পর্যন্ত…

Reading Time: 4 minutes রিয়েল এস্টেট বিনিয়োগকারী হওয়া বেশ সহজ। এমন অনেক উপায় রয়েছে যার মাধ্যমে আপনি বিনিয়োগকারী হয়ে উঠতে পারবেন। কিন্তু, একজন সফল বিনিয়োগকারী হয়ে ওঠা সম্পূর্ণ ভিন্ন বিষয়। কারণ, একজন সফল বিনিয়োগকারী হতে অনেকগুলো বিষয় রয়েছে যেগুলো আপনাকে বিবেচনা করতেই হবে। রিস্ক, ক্যাশ ফ্লো, সুবিধা, নিরাপত্তা ও নির্ভরযোগ্যতা এই সমস্ত বিষয় নিয়ে চিন্তাভাবনা ছাড়াই যেকোন কিছুতে বিনিয়োগ করা মোটেও বুদ্ধিমানের কাজ নয়। কিন্তু, যখন আপনি এই সমস্ত বিষয় নিয়ে চিন্তাভাবনা করবেন তখন জানবেন রিয়েল এস্টেট খাতের মত নিরাপদ, নির্ভরযোগ্য ও লাভজনক খাত আর কোনটা নেই। এছাড়াও, রিয়েল এস্টেটে বিনিয়োগ করার প্রচুর কারণ রয়েছে। তার আগে আমরা জানবো, সফল রিয়েল এস্টেট বিনিয়োগকারীর বৈশিষ্ট্য আসলে কী? পরিকল্পনা  যথাযথ বা সঠিক পরিকল্পনা সফল রিয়েল এস্টেট বিনিয়োগকারীর বৈশিষ্ট্য হিসেবে প্রথমেই আসবে।  কেবল রিয়েল এস্টেটে নয়, যেকোন সেক্টরে একজন সফল বিনিয়োগকারী হওয়ার জন্য, স্বল্পমেয়াদী ও দীর্ঘমেয়াদী উভয় পরিকল্পনা করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। যথাযথ পরিকল্পনা একজন বিনিয়োগকারীকে ভবিষ্যতের সম্ভাবনা ও বিনিয়োগ ক্ষেত্রের অন্তর্নিহিত ছোট ছোট সমস্যা দেখতে সহায়তা করে।…

Reading Time: 5 minutes একটি বাড়ি বা বিল্ডিং নির্মাণ করা যতটা সহজ মনে হয় আসলে ততটা সহজ নয়। এর সাথে রয়েছে বিভিন্ন রকম নিয়মকানুন। যখন আপনি রাস্তার পাশে বা অন্যের প্লট সংলগ্ন একটি ভবন নির্মাণ করছেন, তখন আপনাকে হাউজিং অ্যান্ড বিল্ডিং রিসার্চ ইনস্টিটিউট (এইচবিআরআই) কর্তৃক নির্ধারিত বাংলাদেশ ন্যাশনাল বিল্ডিং কোড (BNBC) অবশ্যই মানতে হবে। বিএনবিসি ২০১৫ অনুযায়ী, অগ্নি নিরাপত্তা, বৃষ্টির পানি শোষণ ইত্যাদির জন্য ভবন নির্মাণের সময় একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ জায়গা খোলা বা খালি রাখা বাধ্যতামূলক। আপনি চাইলে ন্যাশনাল বিল্ডিং কোড প্রবন্ধের মৌলিক নিয়ম সম্বন্ধে আরও জানতে পারেন। তবে এই আলোচনা আজকে করবো না। বরং এই আর্টিকেলে আমরা জানবো, বিএনবিসি এর নির্দেশনা অনুযায়ী ছেড়ে দেয়া খোলা জায়গাটি আসলে কীভাবে ব্যবহার করা যায়!  ছেড়ে দেয়া খোলা জায়গাটি যেভাবে ব্যবহার করা সম্ভব বিএনবিসি এর নির্দেশনা অনুযায়ী ভবন নির্মাণের জন্য ছেড়ে দেয়া খোলা জায়গাটি আপনার প্লট বা বিল্ডিং অনুযায়ী কম বেশি হতে পারে। যেমন, বিএনবিসি এর নির্দেশনা অনুযায়ী ৩ কাঠা প্লটে ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে যে পরিমাণ জায়গা…