Category

ট্রেন্ডস

Category

Reading Time: 3 minutes বলা হয়, দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের চাবিকাঠি পদ্মা সেতু। কিন্তু শুধুই কি অর্থনীতি? শুধুই কী দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলের মানুষ? নাকি এর প্রভাব পড়ছে রাজধানী ও এর আশেপাশের আবাসন খাতেও? আর পরিবর্তন আনতে যাচ্ছে প্রপার্টি কেনা, বেচা ও ভাড়া সহ নানা দিকে! এটি নিঃসন্দেহে সত্যি যে, পদ্মা সেতুকে ঘিরে পুরো দক্ষিণাঞ্চলের ব্যবসা-বাণিজ্য ও অর্থনীতি আরো বেশি গতিশীল হচ্ছে। তবে, বিভিন্ন আর্থিক খাতের মত, পদ্মা সেতুর কারণে আবাসন খাত ও প্রভাবিত হচ্ছে নানাভাবে। বিস্তারিত জানতে পড়তে থাকুন আজকের আর্টিকেল।  প্রপার্টির মূল্য বৃদ্ধি  ঢাকার কাছেই অবস্থিত কেরানীগঞ্জ থেকে একেবারে মুন্সীগঞ্জের মাওয়া পর্যন্ত পদ্মা সেতুর কারণে আবাসন খাত এর ব্যাপক পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে।  বিশেষ করে, এই অঞ্চলগুলোতে এখন ল্যান্ড প্রকল্পের জন্য সম্ভাবনা অনেক বেশি। পদ্মা সেতুর কারণে যোগাযোগ সহজ হয়েছে। কমেছে সময় ক্ষেপণের মাত্রা। তাই, সহজ যাতায়াত ব্যবস্থার কারণে, অসংখ্য শিল্প কারখানা গড়ে উঠতে যাচ্ছে সেতুর এপার ও ওপারের এলাকাজুড়ে। আর এ কথা তো বলারই অপেক্ষা রাখে না, শিল্প কারখানা যেখানে থাকবে, সেখানেই বাড়বে…

Reading Time: 3 minutes সাম্প্রতিক সময়ে, অনেকেই ইন্টেরিয়র ডেকোর এর ব্যাপারে আগ্রহী হয়ে উঠছেন। বিশেষ করে নতুন কেনা কোন অ্যাপার্টমেন্টের ইন্টেরিয়র ডেকোরে নতুনত্ব আনতে, এমনকি পুরনো ফ্ল্যাটকে নতুন কোন ডিজাইনে সাজানোর পরিকল্পনা করছেন অনেকেই। আর ঠিক তখনই প্রয়োজন হয় একজন এক্সপার্টের, যিনি কিনা ঘরের ইন্টেরিয়র ডিজাইনিং -এ সিদ্ধান্ত নিতে আপনাকে পূর্ণ সহায়তা করতে পারবে। কেননা, ইন্টেরিয়র নিয়ে সাধারণ কিছু জিজ্ঞাসা আমাদেরকে প্রতিনিয়তই ভাবিয়ে তুলে। আর আমাদের প্রয়োজন হয় সহজ কিছু সমাধানের।   ইন্টেরিয়র ডিজাইনের জন্য কোন স্টাইলটা হবে মানানসই, কোন ধরনের ম্যাটেরিয়াল ব্যবহার করা যাবে, দেয়ালে ফিক্সড ফার্নিচার মানাবে, নাকি কাস্টমাইজড ডিজাইনিং হবে পারফেক্ট ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয়ে একজন দক্ষ ডিজাইনারই আপনাকে গাইড করতে পারবে কিভাবে আপনি আপনার বসবাসের জায়গাকে আরও নিখুঁতভাবে দিজাইন করে নিতে পারবেন। আর তাই মনের ভেতর ঘুরপাক খেতে থাকা  ইন্টেরিয়র নিয়ে সাধারণ কিছু জিজ্ঞাসার উত্তর নিয়েই সাজানো আমাদের আজকের ব্লগ।   ইন্টেরিয়র ডিজাইন করানো কি অনেক ব্যয়বহুল হবে?  ইন্টেরিয়র নিয়ে সাধারণ কিছু জিজ্ঞাসার মধ্যে বেশ প্রচলিত একটি প্রশ্ন হলো বাজেট কত পড়বে? খুব…

Reading Time: 3 minutes প্রপার্টিতে বিনিয়োগের জন্য অনেকে জমি কেনার ব্যাপারে আগ্রহী হয়ে থাকেন। অনেকেই আবার জমি কেনার কাজটি বেশ ঝামেলাপূর্ণ মনে করেন। জমি কেনার ক্ষেত্রে যেহেতু বিনিয়োগের সংখ্যাটাও হয় বড়, তাই কিছুটা ঝুঁকি নিয়েই এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। জমির মূল্য নির্ধারণ, জমির সকল দলিলপত্র যাচাই-বাছাই, বিভিন্ন ধাপে আইনি ঝামেলা থেকে শুরু করে হাজারো জটিলতার মধ্য দিয়ে যাওয়া ইত্যাদি বিষয় জমির কেনার সাথে যেন ওতপ্রোতভাবে জড়িত। আর তাই প্রপার্টিতে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে জমি কেনা এবং উক্ত জমিতে বাড়ি নির্মাণ বেশ কষ্টসাধ্য বিষয়ই বলা যায়। তবে জমির কেনার আগে বিবেচনায় রাখা জরুরি এমন বিষয় সমূহের মধ্যে জমির অবস্থান, এর আশেপাশের সুযোগ-সুবিধা সমূহ, জমির আয়তন, জমির দলিলপত্র ইত্যাদি বিভিন্ন দিক সম্পর্কে সঠিক তথ্য জেনে এবং পরিপূর্ণ পর্যবেক্ষণ করে, তবেই জমি কেনার সিদ্ধান্ত নেয়া জরুরি। তবে চলুন জেনে নেয়া যাক জমি কেনার আগে বিবেচ্য বিষয় সমূহ সম্পর্কে।   জমির অবস্থান শহরের যে প্রান্তেই আপনি বাড়ি বানানোর পরিকল্পনা করেন না কেন, সেখানে বাড়ি বানানোর জন্য জায়গাটা কতটা উপযুক্ত, তা নির্ধারণ…

Reading Time: 4 minutes মহামারী চলাকালীন সময়ে বিশ্ব অর্থনীতিতে অনিশ্চয়তার যে ঝড় বয়ে যায়, বাংলাদেশের আবাসন খাত সেক্ষেত্রে অন্যান্য দেশের তুলনায় বেশ স্থিতিশীলই ছিল বটে। আর এরই ধারাবাহিকতায় ২০২০-২০২১ অর্থবছরে বাংলাদেশের আবাসন খাত এর জন্য সংশোধিত বাজেট প্রণয়নের সাথে সাথে, রিয়েল এস্টেট বাজারকে মহামারীর নেতিবাচক প্রভাব থেকে রক্ষা করতে বেশ কিছু নতুন নিয়মনীতি নিয়ে কাজ করা হয়। যার ফলাফলও মানুষ দেখতে শুরু করে। তবে ২০২১ সালের শুরুতে সময়টা ভালো গেলেও, রাশিয়া-ইউক্রেনের যুদ্ধের কারণে বিশ্ব অর্থনীতির চিত্র যেন হুট করেই বদলে যায়। জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধির সাথে সাথে দেখা দেয় সংকট, যা বাংলাদেশের আবাসন খাতকে বেশ বড় রকমের চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন করে দেয়। তবে চলুন ফিরে দেখা যাক, ২০২১-২০২২ অর্থবছরে বাংলাদেশের আবাসন খাত এ কোন বিষয় সমূহ প্রভাব ফেলে।   কাঁচামালের মূল্য বৃদ্ধি  কাঁচামালের মূল্য বৃদ্ধির কারণে ২০২১ সালে প্রপার্টির মূল্যও বৃদ্ধি পায় লক্ষণীয় মাত্রায়। আর এর শুরুটা হয় করোনা মহামারীর মধ্য দিয়ে। ফলাফলে ২০২০ সালে সমগ্র বিশ্বই যেন স্থবির হয়ে যায়। আর এর প্রভাব আবাসন খাত থেকে…

Reading Time: 4 minutes রিয়েল এস্টেট সেক্টরে বিনিয়োগের কথা ভাবছেন? সেক্ষেত্রে শুরুতেই আপনাকে রিয়েল এস্টেট সেক্টরের মার্কেট ট্রেন্ড সম্পর্কে ভালো ধারণা রাখতে হবে। জানতে হবে এই সেক্টরে নিত্যনতুন কী চলছে, নতুন কোন পরিবর্তন এসেছে কিনা, কিংবা প্রপার্টিতে বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে কোন এলাকাটি হবে সেরা ইত্যাদি বিষয় সমূহ পর্যালোচনা করা। এক্ষেত্রে প্রপার্টিতে বিনিয়োগের জন্য ঢাকার সম্ভাব্য এলাকা সমূহ এর একটি তালিকা তৈরিতে বিপ্রপার্টি আপনাকে পূর্ণ সহায়তা করতে প্রস্তুত। কেননা, এলাকা এবং আয়তন ভেদে প্রপার্টির মূল্য তারতম্য সম্পর্কে গবেষণা করার ক্ষেত্রে বিপ্রপার্টির ওয়েবসাইটে আপনি পাচ্ছেন প্রপার্টির অসংখ্য তালিকা। যেখান থেকে ধারণা নিয়ে আপনিও প্রপার্টিতে বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন খুব সহজে এবং দ্রুত সময়ে। তবে চলুন আজকের ব্লগ থেকে প্রপার্টিতে বিনিয়োগের জন্য ঢাকার সম্ভাব্য এলাকা সমূহ এর কয়েকটি সম্পর্কে ধারণা নেয়া যাক।   দক্ষিণখান সম্ভাবনাময় ভবিষ্যৎ সাথে বাজেটের মধ্যে অ্যাপার্টমেন্ট কেনার কথা বিবেচনা করলে বর্তমান সময়ে তালিকার শীর্ষে জায়গা করে নিয়েছে দক্ষিণখান এলাকাটি। বিশেষ করে নতুন উদ্যোক্তাদের ক্ষেত্রে প্রপার্টিতে বিনিয়োগের জন্য ঢাকার সম্ভাব্য এলাকা হিসেবে অনেকেই বেছে…

Reading Time: 4 minutes বসবাসের জন্য ঢাকার প্রায় সব এলাকাই কম-বেশি জনপ্রিয়। বিভিন্ন এলাকা জনপ্রিয় হয়ে ওঠার  থাকে নানান কারণ। কোন কোন ক্ষেত্রে প্রপার্টির চাহিদা  , বাজেট কিংবা তুলনামূলক বেশি সুযোগ-সুবিধা থাকার কারণেও প্রপার্টি ক্রেতাদের কাছে নির্দিষ্ট কিছু এলাকা থাকে পছন্দের তালিকার শীর্ষে। ঢাকার জনপ্রিয় এ সকল লোকেশনে  প্রপার্টি কেনার ক্ষেত্রে ক্রেতারা বিনিয়োগের ব্যাপারে আগ্রহী হয়ে ওঠেন। এ কারণেই, প্রপার্টি কেনার সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে উক্ত এলাকাটিতে আপনি কী কী ধরনের সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছেন, তা ভালোভাবে যাচাই-বাছাই করে তবে সিদ্ধান্ত নেয়া জরুরি। আর তাই ২০২২ সালে ঢাকায় ফ্ল্যাট কেনার জন্য পছন্দের এলাকা সমূহ এর মধ্যে বিপ্রপার্টির তালিকা অনুযায়ী কোন এলাকাগুলো রয়েছে পছন্দের শীর্ষে এবং উক্ত এলাকাগুলো জনপ্রিয় হয়ে ওঠার পেছনে কী কী কারণ রয়েছে, চলুন জেনে নেয়া যাক।    ধানমন্ডি  ভিজিটর সংখ্যা- মোট ভিজিটরের ১৩.৭৬%  প্রপার্টির খোঁজে ২০২২ সালে বিপ্রপার্টির ওয়েবসাইটে আসা মোট ভিজিটরের ১৩.৭৬% ছিল ধানমন্ডির প্রপার্টির খোঁজে। যা তালিকার ১ম এবং সবচেয়ে জনপ্রিয় এলাকা হিসেবে তালিকাবদ্ধ রয়েছে।   ঢাকার অন্যতম ছিমছাম আবাসিক এলাকা হিসেবে পরিচিত…

Reading Time: 7 minutes অ্যাপার্টমেন্ট কেনা, বেচা বা বিনিয়োগের প্রশ্নে সব থেকে জরুরি হচ্ছে বর্তমান সময়ে ফ্ল্যাটের মূল্য তারতম্য সম্পর্কে বিশদভাবে ধারণা রাখা। এ বিষয়ে ভালোভাবে জানা থাকলে একজন ক্রেতা, বিক্রেতা বা বিনিয়োগকারী সহজেই সিদ্ধান্ত নিতে পারেন যে, ঢাকার মাঝে ফ্ল্যাট কেনা বা বেচার জন্য সঠিক সময় আসলে কোনটি। এছাড়া, বর্তমানে রিয়েল এস্টেট মার্কেট কোন দিকে যাচ্ছে এটিও আপনি খুব সহজেই বুঝতে পারবেন যদি  ফ্ল্যাটের মূল্য তারতম্য সম্পর্কে ধারণা থাকে।  বিপ্রপার্টির তথ্য বলছে, ২০২১ সালে ঢাকায় প্রতিটি ফ্ল্যাটের প্রতি বর্গফুটের গড় মূল্য ছিল ৬,৩৪০ টাকা, যা ২০২০ সালের ফ্ল্যাটের তুলনায় ২% কম। এই সময়ের মধ্যে, ঢাকার মাঝে ৬৭ এলাকার প্রায় ২৯টি এলাকায় ফ্ল্যাটের মূল্যের নিম্নমূখী ও ৩৮টি এলাকায় ফ্যাটের মূল্যের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা দেখা গেছে।  ঢাকার মাঝে ২০২০ থেকে ২০২১ সালে বিপ্রপার্টির তালিকাভুক্ত হওয়া ফ্ল্যাটের মূল্য তারতম্য সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পড়তে থাকুন আজকের আর্টিকেল।  বাড্ডা  ২০২০ ও ২০২১ সালে ফ্ল্যাট কেনার জন্য জনপ্রিয় এলাকাগুলোর মধ্যে অন্যতম এলাকা ছিল বাড্ডা। বিশেষ করে যারা ব্যাংক বা আর্থিক…

Reading Time: 3 minutes যে কোনো প্রপার্টি কেনা-বেচা বা হস্তান্তর করতে চাইলে বেশ কিছু আইনি প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে আমাদের যেতে হয়। বিশেষত জমি কেনা-বেচার ক্ষেত্রে, রেজিস্ট্রেশনের পরেই যে গুরুত্বপূর্ণ আইনি প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করা জরুরি তা হচ্ছে নামজারি বা মিউটেশন। কারণ, নামজারি করা না থাকলে আইনের ফাঁক-ফোকরে নানাভাবে প্রপার্টি বেদখল হওয়ার সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়। অথচ গুরুত্বপূর্ণ এই আইনি বিষয়টি এখনো পর্যন্ত আমাদের অনেকের কাছেই দুর্বোধ্য।  তাই  নামজারি বা মিউটেশন কী, কেন জরুরি এবং কীভাবে মিউটেশন করতে হয়, সব প্রশ্নের বিস্তারিত থাকছে আজকের লেখায়।  নামজারি কী ? নামজারি বিষয়টি প্রণয়ন করা হয়েছে ভূমির মালিকের মালিকানা নিয়ে জটিলতা এড়ানোর জন্য। যখন কোন ব্যক্তি কিংবা প্রতিষ্ঠান বৈধভাবে অথবা আইনগতভাবে ভূমি বা জমির মালিকানা অর্জন করে সরকারি রেকর্ডে মালিকানার নাম হালনাগাদ করা হয়, আইনি ভাষায় যাকে বলা হয় নামজারি। অর্থাৎ, নামজারি বা মিউটেশন অর্থ হলো বর্তমানে থাকা খতিয়ান থেকে নতুন মালিকের নাম সংযোজন করে নতুন একটি খতিয়ান তৈরি করা।  নামজারি যখন সম্পন্ন হয় নতুন নাম্বারের এই খতিয়ানটি নতুন মালিককে…

Reading Time: 3 minutes লিজ হোল্ড প্রপার্টির ক্ষেত্রে আপনি চাইলেই কিন্তু মালিকানা স্থানান্তর বা ওনারশিপ ট্রান্সফার করতে পারবেন না। এক্ষেত্রে রাজউক এর বিধিমালা অনুযায়ী, লিজহোল্ড প্রপার্টি বিক্রি করতে হলে সবার প্রথমেই আপনার প্রয়োজন হবে সেল পারমিশন এর। লিজহোল্ড প্রপার্টির মালিকানা স্থানান্তর বা ওনারশিপ ট্রান্সফার এর এটিই প্রথম ধাপ। প্রপার্টি বিক্রয় করা শেষে সকল লেনদেন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা শেষ করে একজন সেলার বা বিক্রেতা নির্দিষ্ট প্রপার্টির উপর থেকে তার মালিকানা ক্রেতাকে হস্তান্তর করেন। আর এই মালিকানা স্থানান্তরের জন্য বিক্রেতাকে প্রপার্টি বিক্রি বিষয়ক যে পারমিশন নিতে হয়, সেটিই মূলত সেল-পারমিশন লেটার হিসেবে পরিচিত।  এক্ষেত্রে জেনে রাখা জরুরি যে, শুধুমাত্র লিজ হোল্ড প্রপার্টির জন্যই কিন্তু এই সেল পারমিশন নেয়ার প্রয়োজন হয়ে থাকে। ফ্রি হোল্ড প্রপার্টির ক্ষেত্রে কিন্তু কোন ধরনের পারমিশন নেয়ার দরকার হয় না।  লিজ হোল্ড প্রপার্টি কোনগুলো?  সাধারণত যেসকল প্রপার্টি সমূহ রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক), চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বা সিডিএ, মিনিস্ট্রি অব ওয়ার্কস বা গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়, ন্যাশনাল হাউজিং অথোরিটি এর তত্ত্বাবধানে থাকে সে সকল…

Reading Time: 3 minutes ঢাকা শহরে নিজের একটা বাড়ির স্বপ্ন কার না থাকে? সেই স্বপ্নপূরণের লক্ষ্যেই চলে লোকেশন বাছাই, জমি কেনা, বাড়ির নকশা নির্মাণ সহ আরও অসংখ্য পরিকল্পনা। কিন্তু এ সকল পরিকল্পনাকে কার্যকর করতে ভবন নির্মাণের আগেই প্রয়োজন পড়ে ভবন নির্মাণের অনুমোদন এর। এক্ষেত্রে রাজউক বা রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ঢাকার সকল উন্নয়ন পরিকল্পনার দেখভালের দায়িত্বে নিয়োজিত সরকারি প্রতিষ্ঠান। গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের অধীনস্ত প্রতিষ্ঠানটির অন্যতম কাজ হচ্ছে ভবন নকশার অনুমোদন দেওয়া। তাই ঢাকায় যেকোনো ভবন নির্মাণ করতে চাইলে আগে আপনাকে এর নকশা রাজউকে জমা দিতে হবে ও অনুমোদন নিতে হবে। এ কারণে ভবন নির্মাণের আগে তার নকশাও রাজউকের বিধিমালা অনুসারে তৈরি হওয়া আবশ্যক। বিশেষত ঢাকার মাঝে ভবন নির্মাণের অনুমোদন পেতে, যেকোনো ভবনের নকশাই বাংলাদেশের জাতীয় ভবন নির্মাণ বিধিমালা ও  রাজউক ইমারত নির্মাণ বিধিমালা মেনে করতে হবে।    ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে এই দুই ধরনের বিধিমালা ভঙ্গ করে কোনো ভবন বা অংশবিশেষ নির্মাণ করা হলে বাংলাদেশের আইনে সেই ভবন বা অংশবিশেষ অবৈধ বলে বিবেচিত হয়। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে…