Reading Time: 4 minutes

আমাদের চারপাশের পরিবেশ একটু একটু করে ঝুঁকে পড়ছে ক্ষতির মুখে। আমরা যদি আমাদের পরিবেশ নিয়ে চিন্তা না করি তাহলে আগামীতে আমরা যেকোন ঝুঁকির মধ্যে পরতে পারি। সুতরাং, পরিবেশের কথা এখন ভাবতে হবে সবচেয়ে বেশি। তাই পরিবেশকে বিপন্ন না করে কিভাবে রিয়েল এস্টেট খাতে উন্নয়ন আনা যায় সেটা নিয়ে ভাবতে হবে। কেননা, বেশীরভাগ দূষণ ঘটে থাকে বড় বড় সব কাঠামোগুলোর জন্য। এই বড় বড় অবকাঠামোগুলোই কোথাও না কোথাও আমাদের সবুজ পরিবেশকে ক্ষতিগ্রস্থ করে থাকে। তাই এমন কিছু উপায় নিয়ে আমাদের ভাবতে হবে যেখানে পরিবেশ-বান্ধব উপায়ে রিয়েল এস্টেট খাতের উন্নয়ন সম্ভব হয়। পরিবেশ বান্ধব ব্যবস্থায় রিয়েল এস্টেটের উন্নয়ন সম্বন্ধে আমাদেরকে জানতে হবে তবেই না এই উন্নয়নকে আনা সম্ভব। 

পরিবেশ-বান্ধব দেয়াল এবং ছাদ

জীবন্ত দেয়াল বা লিভিং ওয়াল
জীবন্ত দেয়াল বা লিভিং ওয়াল

ছাদ বাগানের বিভিন্ন পদ্ধতি রয়েছে যা আমাদের চারপাশকে সবুজ রাখতে সাহায্য করে। কেবল ছাদে নয়, একটি ভবনের পুরো বাইরের দেয়ালটিকে সবুজ দেয়ালে পরিণত করা যেতে পারে, কৃত্তিমভাবে যা তাপ নিরোধক এবং শীতলকরণের ব্যয়কে কমিয়ে আনতে পারে। এগুলোকে জীবন্ত দেয়াল বা লিভিং ওয়াল বলে। এগুলোর অন্যনাম বায়ো-ওয়ালও। কারণ, এই দেয়ালগুলো অক্সিজেন এবং কার্বন-ডাই-অক্সাইডের বিনিময়ের মাধ্যমে সৌর বিকিরণের প্রতিফলন ঘটিয়ে ভবনের চারপাশে বায়ু মানের উন্নতি করে। এই উপায় মেনে চললে, আপনি বড় বড় ইনসুলেটরগুলো ব্যবহার করার প্রয়োজন অনুভব করবেন না অন্যদিকে এগুলো পরিবেশ-বান্ধবও বটে। এমনকি আপনার ঘরের ভেতরের কার্বন এর মাত্রা কমিয়ে আনার আরও বেশ চমৎকার কিছু উপায়ও রয়েছে।

ইন্টিগ্রেটেড ফটোভোলটাইক প্যানেল ইনস্টলেশন

সোলার প্যানেল
সোলার প্যানেল

ইন্টিগ্রেটেড ফটোভোলটাইকস একটি আধুনিক সৌর প্যানেল প্রযুক্তি। সোলার প্যানেলের সর্বাধিক ব্যয়বহুল একটি  আপ-গ্রেডেশন প্রযুক্তি। এগুলো মূলত ছাদে স্থাপন করা হয়। এগুলো অত্যন্ত স্বচ্ছ এবং স্কাইলাইট বা জানালার জন্য ব্যবহার করা যায়। এখনকার সময়ে এটা খুব চমৎকার উদ্ভাবন। ফটোভোলটাইক মানে হ’ল যখনই এই প্যানেলগুলো সূর্যের আলোতে আসে তখন এগুলো বিদ্যুৎ উত্পাদন করে। অর্থাৎ পুরো বাণিজ্যিক ভবন এমনকি আবাসিক ভবনেও এই প্যানেলের দ্বারা বিদ্যুৎ উত্পাদন করতে সক্ষম। পরিবেশকে বিপদে না ফেলে রিয়েল এস্টেট উন্নয়নের জন্য এটা অন্যতম সেরা প্রযুক্তি।

ইলেক্ট্রোক্রোমিক গ্লাসে বিনিয়োগ

ইলেক্ট্রোক্রোমিক গ্লাস
পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করার জন্য এই পরামর্শ বেশ কার্যকরী

ইলেক্ট্রোক্রোমিক গ্লাস রিয়েল এস্টেট এবং পরিবেশ-বান্ধব ভবনগুলোর ভবিষ্যৎ। প্রচুর জানালা তৈরি সংস্থাগুলো এখন এই গ্লাস তৈরিতে বিনিয়োগ করছে কেননা এই গ্লাসগুলো সূর্যের আলোকে ধরতে রাখতে অনেক সময় ধরে রাখতে ফলে ঘরের ভেতর উত্তপ্ত কম হয়। ইলেক্ট্রোক্রোমিক গ্লাস এমন এক স্মার্ট উদ্ভাবন যা তাপ এবং বিদ্যুতকে ব্যবহার করে অস্বচ্ছ থেকে স্বচ্ছ রূপে রূপান্তর হতে পারে। এটা প্রোগ্রাম করা হয়েছে বিভিন্ন সেন্সর দিয়ে এবং নিয়ন্ত্রণ করা যায় সেন্ট্রাল সিস্টেম থেকে। এই গ্লাসগুলো চুলের থেকেও পাতলা একাধিক স্তরের ন্যানো প্রযুক্তির ব্যবহার করে। আপনি যদি পুরো বিল্ডিংয়ে এই গ্লাস ব্যবহার করেন তবে আপনাকে এইচভিএসি (উত্তাপ, বায়ুচলাচল এবং শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ)তে বেশি বিনিয়োগের দরকার নেই। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করার জন্য এই পরামর্শ বেশ কার্যকরী। 

পরিবেশ বান্ধব ইট

ইট ভাটা
ইটভাটার ইট উৎপাদনের প্রচলিত পদ্ধতি আমাদের প্রাকৃতিক পরিবেশের অনেক ক্ষতি করেছে

বর্তমানে মোট ৩০টির বেশি সংস্থা পরিবেশ-বান্ধব ইট তৈরি করছে। এই ইটগুলো অত্যন্ত কার্যকর এবং কংক্রিট ব্লক আকারে আসে। ইটভাটার ইট উৎপাদনের প্রচলিত পদ্ধতি আমাদের প্রাকৃতিক পরিবেশকে অপরিবর্তনীয় ক্ষতি করেছে। এটাই উপযুক্ত সময় এই বিষাক্ত ইট ভাটায় পরিবেশ বান্ধব ইট উত্পাদন ব্যবস্থা চালু করার। হাউজ বিল্ডিং রিসার্চ ইনস্টিটিউট (এইচবিআরআই) যারা গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সাথে ৪০ বছরের বেশি সময় ধরে  নিরবচ্ছিন্নভাবে কাজ করছে যাতে পরিবেশ-বান্ধব একটি সমাধান আসে। এই নতুন পরিবেশ-বান্ধব ইটগুলিতে কোনও পোড়া প্রক্রিয়া বা টপসয়েল উত্তোলনের প্রয়োজন হয় না। যার ফলে একটি কৃষিজমি কমপক্ষে তিন বছরের জন্য বন্ধ্যা হওয়া থেকে বেঁচে যায়। সুতরাং, এখন সময় এসেছে যে আমাদের বাস্তুসংস্থানটিকে আসন্ন ক্ষয়ক্ষতি থেকে বাঁচানোর। পরিবেশ-বান্ধব উপায়ে রিয়েল এস্টেট খাতের উন্নয়ন এভাবেই শুরু করা সম্ভব। 

টেকসই এবং পুনর্ব্যবহারযোগ্য উপকরণগুলোর সর্বোচ্চ ব্যবহার

নির্মাণাধীন ভবন
পরিবেশগত নানা সমস্যার সমাধান সহজেই মিলবে

ঘরের অনেক প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রগুলোকে যত্ন সহকারে সংরক্ষণ এবং ব্যবহার করা জরুরী। পুনর্ব্যবহারযোগ্য প্লাস্টিক, গ্লাস, ইট এবং কাঠের মতো বিভিন্ন জিনিসগুলো পুনরায় ব্যবহার করার জন্য উৎসাহিত করতে পারে। বর্তমানে নানারকমের পণ্য প্রতিস্থাপনের জন্য বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদিত নানাধরণের বায়োডেগ্রেডেবল পণ্য রয়েছে। এছাড়াও, নির্মাণকাজের পরে প্রাকৃতিক গ্যাস ব্যবহারের বিকল্প পদ্ধতি স্থাপন করার মাধ্যমে আমরা বৃহৎ আকারে প্রাকৃতিক গ্যাসের লাইন স্থাপনের খরচ এবং প্রভাব দুটোই কমিয়ে আনতে পারি। পরিবেশকে বিপন্ন না করে রিয়েল এস্টেট খাতের উন্নয়ন করা হলে পরিবেশগত নানা সমস্যার সমাধান সহজেই মিলবে। 

পরিবেশ-বান্ধব মেঝে

উডেন ফ্লোর
পরিবেশ-বান্ধব একটি পদক্ষেপ

আপনার বাড়ি নির্মাণের একটি বড় অংশ হচ্ছে ঘরের মেঝে। বাসা কিংবা অফিসের জন্য একাধিক মেঝের অপশন থাকতেই পারে। কোন মেঝে বাছাই করবেন তার নির্ভর করে মেঝের প্রকারভেদের উপর। মেঝে নির্বাচনের বেলায় একাধিক বিকল্প থাকতে পারে। তাই বুদ্ধি করে মেঝের উপকরণগুলো নির্বাচন করতে হবে অতন্ত গুরুত্বপূর্ণভাবে। বর্তমানে বিভিন্ন ক্ষেত্রে কাঠের পরিবর্তে বাঁশ ব্যবহার করা হচ্ছে। নারকেল টাইলস একটি পরিবেশ-বান্ধব আবিষ্কার যা সহজেই সিরামিক টাইলসকে প্রতিস্থাপন করতে পারে। একাধিক স্তর বিশিষ্ট মেঝে রয়েছে  যা পুনর্ব্যবহারযোগ্য এবং অপচয়রোধী। বিভিন্ন সংস্থা পুনর্ব্যবহারযোগ্য প্লাস্টিকের বোতল থেকে কার্পেটও তৈরি করছে। যা পরিবেশ-বান্ধব একটি পদক্ষেপ। 

পরিবেশ-বান্ধব রিয়েল এস্টেটের ভবিষ্যৎ: থ্রিডি প্রিন্টিংয়ের মাধ্যমে নির্মাণ

থ্রী ডি প্রিন্টার
থ্রী ডি প্রিন্টিং প্রযুক্তি

থ্রী ডি প্রিন্টিং প্রযুক্তি দিন দিন অগ্রসর হচ্ছে। চীনের একটি সংস্থা মাত্র ২৪ ঘন্টার ব্যবধানে পুনর্ব্যবহৃত সামগ্রী থেকে দশটি কংক্রিটের ঘর সফলভাবে ছাপিয়ে নিতে পারছে। প্রচলিত নির্মাণের তুলনায় কার্বন ফুটপ্রিন্ট অত্যন্ত কম ছিল। পরিবেশ-বান্ধব উপায়ে রিয়েল এস্টেট খাতের উন্নয়ন এর বিষয়ে এই প্রযুক্তিটি বেশ কার্যকরী। এটা কেবল ব্যয় কমিয়ে আনছে তা নয়, প্রচুর পরিমাণের শক্তির অপচয় রোধ করছে। 

পরিবেশকে বিপন্ন না করে পরিবেশ-বান্ধব উপায়ে রিয়েল এস্টেট খাতের উন্নয়ন আনার প্রচেস্টা কেবল আমার একার না, সকলের! সকলকে এক সাথে ভাবতে হবে কিভাবে একটি পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করা যায়। 

Write A Comment