Category

পালস

Category

Reading Time: 3 minutes বাংলাদেশের জাতীয় সংসদ ভবন বা পার্লামেন্ট ভবন অবস্থিত ঢাকার শেরে বাংলা নগরে। ঢাকা শহরে কিংবা ঢাকার বাইরে যেখানেই থাকা হোক না কেন, সংসদ ভবন এরিয়ার আশেপাশে দিয়ে হাঁটা হয়নি বা যাতায়াতের সময় এ রাস্তা ব্যবহার করেননি, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া কিছুটা কঠিনই বলা যায়। চমৎকার এই স্থাপনাটি আমাদের দেশের তো বটেই, বিশ্বের আকর্ষণীয় স্থাপনার মধ্যে অন্যতম একটি। পৃথিবীর অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশের সংসদ ভবনটিও এই দেশের গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাগুলোর মধ্যে একটি। বাংলাদেশের সকল সংসদীয় কার্যক্রম মূলত এই ভবন থেকেই পরিচালনা করা হয়। আর এ কারণেই এটি স্থাপন করার সময় বিশেষভাবে এ ভবনের নকশা করা হয়। নির্মাণের পরিকল্পনা  ঢাকাকে পাকিস্তানের দ্বিতীয় রাজধানী হিসাবে ঘোষণা দেয়ার পর ১৯৫৯ সালে শেরে-বাংলা নগরে একটি সংসদ ভবন তৈরির পরিকল্পনা করা হয়। তৎকালীন সময়ের খ্যাতনামা মার্কিন স্থপতি লুইস কানকে ভবনটির নকশা তৈরির দায়িত্ব দেয়া হয়। ১৯৬২ সালের দিকে কান ভবনটির নকশা সরকারের কাছে জমা দেন। নকশা অনুসারে ভবনটি তৈরির জন্য ১৯৬৪ সালে ১ কোটি ৫০ লাখ মার্কিন…

Reading Time: 3 minutes ম্যুরাল বা দেয়াল চিত্র। ঊনবিংশ শতকের প্রায় শেষের দিক থেকে দেয়ালে বা সিলিংয়ে এই ধরনের ম্যুরাল বা দেয়াল চিত্র করা হতো। জনসাধারণের মধ্যে শিল্পচেতনা জাগ্রতের জন্য দেয়ালে চিত্র আঁকা হতো। কোন একটা প্রেক্ষাপটকে সামনে রেখে দেয়ালে এই চিত্রগুলো আঁকা হতো। দেয়ালের এই চিত্রগুলো বড় আকারে হতো তাই দেয়ালে আকার জন্য আলাদা দেয়াল চিত্রকারীই রয়েছে। তাদেরকে ম্যুরাল আর্টিস্টও বলা হতো। ম্যুরাল যে কেবল শিল্পকর্ম তা নয়, সামাজিক সমস্যা মুক্তির বা রাজনৈতিক লক্ষ্য অর্জনের একটি শক্তিশালী হাতিয়ার এটি। কখনও কখনও আইনের বিরুদ্ধে গিয়ে ম্যুরাল তৈরি করা হয়েছে আবার কখনো ইন্টেরিয়রের সৌন্দর্যের জন্য স্থানীয় রেস্তোরাঁ বা কফি শপে বসানো হয়েছে। আজ লিখবো বিশ্বজুড়ে সেরা কয়েকটি শহুরে দেয়াল চিত্র নিয়ে। চলুন শুরু করা যাক…  আই হার্ট, নো বাডি লাইকস মি ভ্যানকুভার, কানাডা  অল্পবয়সী ছেলে হাতে মোবাইল ফোন ধরে দাঁড়িয়ে আছে। মুখ অবয়বে তার যন্ত্রণা। সে যেন চিৎকার করছে। চিৎকার করে যেন কি বলতে চাচ্ছে! ছেলেটির মাথার উপর ইনস্ট্রাগ্রামের লাইক, কমেন্টের আইকন দেয়া। এই আইকনে…

Reading Time: 3 minutes বিশ্বজুড়ে তারকারা কীভাবে থাকেন? কীভাবে বা সময় কাটান? তাদের বাড়িটি কীভাবে সাজানো? তাদের পছন্দের ঘরটি দেখতে কেমন? এই সব নিয়ে সাধারণ মানুষের কৌতূহলের যেন শেষ নেই। রূপালি পর্দার পেছনেও তাদের জীবন বেশ রোমাঞ্চকর আর বিলাসবহুল। তাদের জীবনযাপন যেন কল্প কাহিনীকেও হার মানায় তেমনি তাদের বাড়িও যেকোন প্রাসাদের চেয়ে কম নয়। বিশ্বের বিলাসবহুল বাড়ি নিয়ে সবারই কম বেশি আগ্রহ কাজ করে, তার উপর যদি তারা তারকা হয়ে থাকেন তাহলে তো কথাই নেই। কল্পনার বাইরে যেখানে আভিজাত্য রয়েছে এমন কয়েকটি তারকা বাড়ি নিয়ে আজকের ব্লগ! বিশ্বজুড়ে তারকাদের বিলাসবহুল বাড়ি এর আদ্যপ্রান্ত জানতে পড়তে থাকুন। শাহরুখ খানের মান্নাত  মুম্বাইয়ের বান্দ্রাতে প্রায় ২৬,৩২৮.৫২ বর্গফুট জায়গা জুড়ে অবস্থিত শাহরুখ খানের বিলাসবহুল বাড়ি ‘মান্নাত’। তবে বিলাসবহুল এই বাড়িটির নাম প্রথমেই কিন্তু মান্নাত ছিল না। প্রথম এই বাড়িটির নাম নির্ধারণ করা হয়েছিল “জান্নাত”। বাড়ি ক্রয়ের পর নাকি তার সাফল্যও যেন অনেকগুণ বেড়ে যায় এবং তখন পুনরায় বাড়ির নামকরণ করেন “মান্নাত”। এই বাড়িটি নাকি শাহরুখ খান তৎকালীন বাড়ি…

Reading Time: 2 minutes ব্যক্তিগত প্রয়োজনে কিংবা পেশাগত কারণে গাড়ি চালানোর প্রয়োজনীয়তা অনেক ক্ষেত্রেই দেখা দেয়। নিরাপদে সড়কে গাড়ি চালানোর জন্য তাই প্রয়োজন সঠিক প্রশিক্ষণ এবং ট্রাফিক নিয়মনীতি সম্পর্কে যথাযথ ধারণা রাখা। এ লক্ষ্যে ঢাকা শহরের বিভিন্ন সড়ক -এ গড়ে উঠেছে বেশ কিছু ড্রাইভিং স্কুল বা ড্রাইভিং শেখানোর ইন্সটিটিউশন। এই স্কুল গুলোতে দক্ষ প্রশিক্ষকদের দ্বারা গাড়ি চালানো শেখানো হয়। ব্যবহারিক ক্লাস নেয়ার পাশাপাশি থিওরিটিক্যাল ক্লাসও করানো হয় ঢাকার ড্রাইভিং স্কুল গুলোতে। থিওরি ক্লাসে ট্রাফিক চিহ্ন, সড়কের সতর্ক সংকেত, ট্রাফিক আইন ও গাড়ির ইঞ্জিন মেকানিক্যাল ও রক্ষনাবেক্ষণ ইত্যাদি সকল বিষয় সম্পর্কেই এখানে ধারণা দেয়া হয়। এমনকি সাপ্তাহিক ও মাসিক ভিত্তিতে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে মূল্যায়নও করার ব্যবস্থাও এখানে রয়েছে। তাই যারা গাড়ি চালানোর জন্য সঠিক প্রশিক্ষণ নেয়ার কথা ভাবছেন, তারা নিচে উল্লেখিত ঢাকার ড্রাইভিং স্কুল গুলোর যেকোনোটি থেকে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত হয়ে সড়কে গাড়ি বা মোটরবাইক চালাতে পারছেন। সড়কে গাড়ি চালানোর সময় সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করা অত্যন্ত জরুরি। আর এজন্য প্রয়োজন সঠিকভাবে নিয়মনীতি মেনে তবেই…

Reading Time: 3 minutes ব্যস্ততায় কাটানো সপ্তাহ শেষে বন্ধুবান্ধব কিংবা পরিবারের সাথে কাটানো মুহূর্তগুলো সবসময়ই বিশেষ হয়। ঢাকা শহরে ঘোরাঘুরির জন্য পার্ক, মার্কেট, বুকশপ ক্যাফে, সিনেপ্লেক্স এবং রেস্টুরেন্টেই আমরা সাধারণত ছুটির দিনগুলো কাটিয়ে থাকি। তবে এসব জায়গার পাশাপাশি ফান এবং অ্যাক্টিভিটির জন্যও ঢাকায় বেশ কয়েকটি জায়গা রয়েছে। যেখানে লেজার ট্যাগ, ক্লে বা মাটি দিয়ে দারুণ সব পাত্র বানানো কিংবা পেইন্ট বল এর মতো দারুণ সব মজার খেলার মাধ্যমে ছুটির দিনটি আরও ভালোভাবে উপভোগ করা সম্ভব। ঢাকা শহরে অবস্থিত এ ধরনের বিনোদন কেন্দ্র গুলোতে কি আপনারও যাওয়া হয়েছে? যদি না গিয়ে থাকেন, তবে চলুন জেনে নেই ঢাকার বিনোদন কেন্দ্র গুলো কোথায় অবস্থিত এবং এ সম্পর্কে আরও বিস্তারিত কিছু তথ্য।      লেজারওয়্যারস  পাশ্চাত্যের অন্যতম জনপ্রিয় একটি খেলা লেজার ট্যাগ বাংলাদেশে সবার প্রথম আসে ২০১৬ সালে। ইতিমধ্যেই এই খেলাটি বাংলাদেশেও বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। লেজার ট্যাগ বাংলাদেশে নিয়ে এসেছে লেজারওয়্যারস। জন্মদিন পালন করা থেকে শুরু করে, বন্ধুবান্ধব কিংবা অফিসের সহকর্মীদের সাথে মজার কিছু মুহূর্ত কাটানোর জন্য এই জায়গাটি…

Reading Time: 5 minutes বাংলাদেশের প্রশাসনিক মানচিত্রে শুরুর দিকে সব থানাই উপজেলা হিসেবে পরিচিত ছিল। কিন্তু ১৮৮২ সালের এই স্থানীয় অধ্যাদেশটি ১৯৮৩ সালে সংশোধন করা হয় এবং পরবর্তীতে ১৯৯৯ সালে সকল থানাকে উপজেলা হিসেবে পুনর্বিন্যাস করা হয়। তবে বর্তমানে থানা বলতে সামগ্রিকভাবে পুলিশ স্টেশনকেই বুঝানো হয়। সাধারণত প্রতিটি উপজেলাতেই একটি করে থানা বা পুলিশ স্টেশন রয়েছে, তবে বৃহত্তম প্রশাসনিক অঞ্চল গুলোর আলাদা আলাদা প্রশাসনিক এলাকাতে আইন প্রয়োগের জন্য একাধিক থানারও ব্যবস্থা রয়েছে।  ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন এবং ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন এর বিভিন্ন ওয়ার্ড ও এলাকা নিয়ে পুরো ঢাকা শহর জুড়ে মোট ৫০টি থানা রয়েছে। একইভাবে প্রতিটি উপজেলায় একটি করে পোস্ট অফিস আছে। তবে বড় ধরনের প্রশাসনিক ইউনিটের ক্ষেত্রে প্রয়োজনে পুরো এলাকা জুড়ে একাধিক পোস্ট অফিসও থাকতে পারে। বাংলাদেশের প্রতিটি পোস্ট অফিসেরই একটি করে পোস্টাল কোড রয়েছে। আর তাই আপনাদের সুবিধার্থে আজকের ব্লগে ঢাকার সকল থানা এবং পোস্টাল কোড এর তালিকা সমূহ উল্লেখ করা হল।  ঢাকার থানা সমূহের তালিকা এবং যোগাযোগের নম্বর  খিলক্ষেত থানা …

Reading Time: 4 minutes সালটা ১৯৭১। সময়টা শঙ্কার, আবার সাহসেরও। অসংখ্য র্নিযাতন-নিপীড়ন সয়ে, অজস্র আত্মত্যাগের মধ্য দিয়ে বিজয়ের মন্ত্রে ঘুরে দাঁড়ালো একটি গোটা জাতি। প্রথমে একটি-দুটি মুক্তাঞ্চল, তারপর ছিনিয়ে আনলো ৫৫ হাজার বর্গমাইলের স্বাধীন ভূ-খণ্ড। বাংলাদেশি হিসেবে জাতিগত পরিচয়কে প্রতিষ্ঠিত করলো বিশ্বমঞ্চে। মুক্তিযুদ্ধে বীর শহীদদের নিঃস্বার্থ আত্মত্যাগ এর মধ্য দিয়ে এই যে অর্জন তাকে স্মরণ করিয়ে দিতেই নির্মিত হয়েছে জাতীয় স্মৃতিসৌধ। কিন্তু এই জাতীয় স্মৃতিসৌধ শুধু মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের স্মৃতি স্মরণের জন্যই নয়, এর মধ্যে লুকিয়ে আছে আমাদের আরও ইতিহাস। যে ইতিহাস, আমাদেরকে এগিয়ে নিয়ে গেছে স্বাধীনতার পথে, বুনে দিয়েছে মাতৃভূমিকে শত্রু মুক্ত করার এক অপ্রতিরোধ্য মনোবল। তাই জাতীয় স্মৃতিসৌধ এর নানা দিক ও এর অন্তর্নিহিত তাৎপর্য নিয়েই আজকের লেখা।   যেভাবে দেখেছি স্মৃতিসৌধকে  লাল ইটের দেয়াল দিয়ে ঘেরা চারদিক। প্রবেশের পর প্রথমেই চোখ চলে যায় শ্বেত পাথরে খোদাই করা লাইনগুলোতে- “বীরের এ রক্তস্রোত মাতার এ অশ্রুধারা/এর যত মূল্য সে কি ধরার ধূলোয় হবে হারা”। এর ডানদিকে রয়েছে বিশাল উন্মুক্ত মঞ্চ। আর সোজা হেঁটে গেলে জাতীয়…

Reading Time: 4 minutes কোনো প্রপার্টির মূল্য কেমন হবে, তা সবচেয়ে বেশি নির্ভর করে প্রপার্টির লোকেশনের উপর।  একজন ক্রেতা বা ভাড়াটিয়াও কিন্তু প্রপার্টি কিনতে বা ভাড়া নিতে, এই বিষয়টিকেই সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেন।   এজন্যই ঢাকার লেকসাইড অ্যাপার্টমেন্ট গুলোর প্রতি সবসময়ই প্রপার্টিতে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ থাকে সবচেয়ে বেশি। আর হবেই বা না কেন, দালানকোঠার ভিড়ে গড়ে ওঠা এই শহরের অ্যাপার্টমেন্টে বসেই যদি লেকের মনোরম দৃশ্য উপভোগ করা যায়, তবে তো বেশ দারুণ হয়, তাই না!      লেকসাইড এর পাশে গড়ে ওঠা বিভিন্ন ধরনের অ্যাপার্টমেন্ট গুলো যত স্কয়ার ফিটেরই হোক না কেন, এর প্রতি মানুষের আগ্রহ সবসময়ই বেশি। আর তাই আপনি যদি ঢাকায় লেকসাইড অ্যাপার্টমেন্ট এর খোঁজে থাকেন, তবে নিচে উল্লেখিত ৪টি এলাকা সম্পর্কে জেনে নিন, যেখানে আপনি লেকসাইড অ্যাপার্টমেন্ট কিনতে বা ভাড়া নিতে পারবেন।       উত্তরা সুপরিকল্পিত অবকাঠামো, সুপ্রশস্থ সড়ক, খোলামেলা জায়গা; বলছি ঢাকা শহরের অন্যতম জনপ্রিয় এলাকা উত্তরার কথা। ঢাকার অন্যান্য এলাকা থেকে এই এলাকাটি বেশ আলাদা। কয়েকটি সেক্টরে বিভক্ত উত্তরার ভেতরে রয়েছে পার্ক, খেলার মাঠ, লেক…

Reading Time: 4 minutes ডিসেম্বর মাস থেকে ফেব্রুয়ারি, বছরের এই সময়টা পিকনিকে যাওয়ার জন্য সবচেয়ে সেরা। ঢাকা শহরের কোলাহল থেকে দূরে গিয়ে গল্প-আড্ডা, বিশ্রাম, খাওয়া-দাওয়া এবং খেলাধুলায় সারাদিন কাটানোর জন্যই মূলত পিকনিকের এই আয়োজন। পরিবারের সবার সাথে কিংবা অফিস এর বাৎসরিক আয়োজন, বছর ঘুরে পিকনিকের প্ল্যান করার এই রীতি অনেক পুরনো। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ঢাকা শহরের আশেপাশের এলাকাগুলোকেই বেছে নেয়া হয় পিকনিকের স্পট হিসেবে। আর এক্ষেত্রে গাজীপুরের রিসোর্টগুলো সবার কাছে খুব জনপ্রিয়। কেননা, গাড়ি বা বাস ভাড়া করে তুলনামূলকভাবে কম সময়ে গাজীপুর যাওয়া সম্ভব বিধায় বেশিরভাগ মানুষই পিকনিকের জায়গা হিসেবে গাজীপুরকে বেছে নেন। গাজীপুরের বিস্তৃত এলাকা জুড়ে গড়ে উঠেছে বেশ কয়েকটি চমৎকার রিসোর্ট। পরিবারের সাথে দারুণ একটি দিন কাটাতে কিংবা অফিসের পিকনিকের জন্য রিসোর্ট সিলেক্ট করার আগে তবে চলুন জেনে নেয়া যাক, সেরা ৪টি গাজীপুরের রিসোর্ট সম্পর্কে বিস্তারিত।  ছুটি রিসোর্ট গাজীপুরের সুকুন্দি গ্রামে প্রায় ৫০ বিঘা জমির উপর গড়ে উঠেছে ছুটি রিসোর্ট। যেখানে নৌ ভ্রমণের পাশাপাশি তাঁবুতে থাকার ব্যবস্থাও রয়েছে। এই রিসোর্টটি গাজীপুরের ভাওয়াল জাতীয়…

Reading Time: 3 minutes বাংলাদেশি বিয়ের অনুষ্ঠান মানেই হল অনেক ধরনের আয়োজন। বিয়ের প্রধান অনুষ্ঠান ছাড়াও হলুদ, মেহেদি, কাবিন এর অনুষ্ঠান এর জন্য আয়োজনের যেন কোন কমতি থাকে না। বিয়ের কেনাকাটা থেকে শুরু করে স্টেজ সাজানো, খাবারের আয়োজন সহ নানান ধরনের কাজের সমন্বয়ে বিয়ের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়। তবে এসব কিছুর আগে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হল বিয়ের কেনাকাটা শুরু করা। এক মাস বা তার বেশি সময় ধরে চলা এই কেনাকাটায় সঠিক জায়গায় সময় মতো প্রয়োজনীয় সব কিছু খুঁজে পাওয়াটাই অনেক ক্ষেত্রে বেশ চ্যালেঞ্জিং হয়ে যায়। আর তাই এই কাজটা আরেকটু সহজ করতে চলুন জেনে নেয়া যাক বিয়ের কেনাকাটার জন্য অর্থাৎ, পোশাক থেকে শুরু করে আনুষাঙ্গিক অন্যান্য জিনিস কিনতে ঢাকার কোন কোন শপিং সেন্টারে যেতে পারেন।   শাড়ি ও শেরওয়ানি বিয়ের দিনক্ষণ ঠিক হওয়ার সাথে সাথেই বিয়ের কেনাকাটা করতে রীতিমত হুলস্থুল লেগে যায়। আর এই তালিকায় সবার প্রথম থাকে বিয়ের পোশাক অর্থাৎ, শাড়ি এবং শেরওয়ানি কেনার পরিকল্পনা। বিয়ের শাড়ি কেনার কথা বললে, সবার প্রথমই উঠে আসে মিরপুর…