Reading Time: 3 minutes

উঁচু ভবন নির্মানের ক্ষেত্রে বিল্ডিং ইভাকুয়েশন প্ল্যান বেশ গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। যেকোন জরুরী অবস্থায় ৫ তলা থেকে ১০ তলা ভবনের চেয়ে স্কাইক্রিপার বা বহুতল ভবন হলে ইভাকুয়েশন প্ল্যান সংঘটিত করা বেশ কঠিন আর সময়সাপেক্ষ একটি বিষয়। সাধারণ ভবনের চেয়ে এই উঁচু ভবনগুলোতে মানুষের সংখ্যা থাকে বেশি তাই কিছু জটিলতা দেখা দেয়। তাই বহুতল ভবনের ক্ষেত্রে কীভাবে ইভাকুয়েশন প্ল্যান সংঘটিত করবেন সে সম্বন্ধে জানতে হবে। সেফ বিল্ডিং নির্মাণ করতে হলে তা একদম কন্সট্রাকশনের সময় থেকে করাই সবচেয়ে উত্তম। আর, টেকসই ও নিরাপদ ভবন নির্মাণ করতে হলে মাথায় রাখতে হবে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তাই চলুন,ইভাকুয়েশন প্ল্যান এর মূল বিষয়বস্তু নিয়ে আলোচনা করা যাক। 

সতর্কতা ব্যবস্থা

ইভাকুয়েশন সিঁড়ি
ইভাকুয়েশন প্ল্যান শুরু করার আগে ভবন থেকে বাহির হওয়ার নিরাপদ পথ প্রস্তুত রাখাও বেশ গুরুত্বপূর্ণ একটি কাজ।

যেকোনও বিল্ডিংয়ের ইভাকুয়েশন প্ল্যান নিশ্চিত করার আগে বিল্ডিং ম্যানেজমেন্টের এই বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে যে এখানে কোন সতর্কতা অ্যালার্ম বা ভয়েস মেশিন রয়েছে কিনা। এরপরই মূলত ইভাকুয়েশনের কাজ শুরু করা উচিত। ইভাকুয়েশন প্ল্যান শুরু করার আগে বিল্ডিংয়ের বাসিন্দাদের এই কাজ সম্বন্ধে আগেই অবগত করতে হবে। নাহলে তারা তাৎক্ষনিক জানতে পারলে হতে পারে যেকোন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা। এছাড়াও ইভাকুয়েশনের কাজ শুরু করার আগে বহুতল ভবন থেকে সকল বাসিন্দাদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিতে হবে যা সময়সাপেক্ষ একটি কাজ। ইভাকুয়েশন প্ল্যান শুরু করার আগে ভবন থেকে বাহির হওয়ার নিরাপদ পথ প্রস্তুত রাখাও বেশ গুরুত্বপূর্ণ একটি কাজ।     

বাসিন্দাদের সিস্টেমের সাথে পরিচিত করা

অ্যালার্ম সিস্টেমটি হচ্ছে বিল্ডিংয়ের বাসিন্দাদেরকে জরুরী অবস্থার সময় আতঙ্ক ও বিভ্রান্তি থেকে বাঁচতে সাহায্য করবে। এছাড়াও, বিল্ডিং ইভাকুয়েশন প্ল্যান সম্বন্ধেও অবগত করে থাকে। বিল্ডিং ম্যানেজমেন্টের নিশ্চিত হওয়া উচিত যে ভবনের বিল্ডিং ইভাকুয়েশন প্ল্যান এবং ভবনের বহির্গমন রুটের সাথে ভবনের বাসিন্দারা সঠিক ভাবে পরিচিত কিনা। যদি পরিচিত না থাকে তাহলে বাসিন্দাদের সহায়তার জন্য স্বেচ্ছাসেবক বা অফিসের কর্মী নিযুক্ত করতে হবে। বেশিরভাগ উঁচু ভবনগুলোতে অটোমেটিক স্প্রিংকলার এবং ধোঁয়া সনাক্তকারী সিস্টেম ইনস্টল করা থাকে যা আগুনের ঝুঁকির হ্রাস করে থাকে,আর স্প্রিংকলার আগুনের প্রভাবকে কমিয়ে দেয় এবং ধোঁয়া ডিটেক্টর নির্দিষ্ট তলা সনাক্ত করতে সহায়তা করে। এই সমস্ত সিস্টেমগুলো যেকোন দূর্ঘটনা থেকে আপনাকে সুরক্ষিত রাখতে পারে। সুতরাং এই সমস্ত সিস্টেমের সাথে যেন ভবনের সকল বাসিন্দারা পরিচিত থাকে তা আপনাকেই নিশ্চিত করতে হবে। 

প্রতিবন্ধী বা আটকে পরা মানুষদের জন্য নির্দিষ্ট প্ল্যান রাখা

ফার্স্ট এইড কিট
যোগাযোগ করার জন্য দ্বি-মুখী যোগাযোগ ব্যবস্থা রাখতে হবে

বিল্ডিং ইভাকুয়েশন প্ল্যান এর সময় বিল্ডিং ম্যানেজমেন্টের একটি বিষয় অবশ্যই মাথায় রাখা প্রয়োজন যে যারা প্রতিবন্ধীতাদের জন্য উঁচু ভবন থেকে সিঁড়ি দিয়ে দ্রুত নেমে আসতে সাধারণ মানুষের থেকে বেশি কষ্ট হবে এবং সময়ও প্রয়োজন। তাই প্রতিটি ফ্লোরে একটি করে বিশেষ রুম থাকতে যেখানে এই মানুষগুলো নিরাপদে অপেক্ষা করবে। এছাড়াও এই সমস্ত পরিস্থিতিতে যোগাযোগ করার জন্য দ্বি-মুখী যোগাযোগ ব্যবস্থা রাখতে হবে যাতে করে কেউ আটকে গেলে বিল্ডিং ম্যানেজমেন্টকে সহজেই জানাতে পারে। এখন পর্যন্ত আমরা আলোচনা করছি যে উঁচু বিল্ডিং ইভাকুয়েশন প্ল্যান এর সময় কীভাবে নিরাপদে ভবনের বাসিন্দাদের সরিয়ে নেওয়া যায় এখন আমরা জানবো জরুরী অবস্থায় ভবনের বাসিন্দাদের আসলে কি করা উচিত সে সম্বন্ধে। 

ছাদে ওঠা থেকে বিরত থাকা 

ভবনে আগুন লাগলে ছাদে উঠতে হবে দ্রুত এই ধারণাটি সঠিক নয়। অনেকেই ধারণা করেন যে তারা যদি উঁচু ভবনের ছাদে উঠতে পারে তাহলে কয়েকশ সিঁড়ি বেয়ে নিচে নামা ও ভয়াবহ কোন দূর্ঘটনা থেকে বাঁচা যাবে। যেটা মূলত ভুল একটি কাজ। কেননা, উদ্ধারকারীদের জন্য বহুতল ভবনের ছাদ থেকে কাউকে উদ্ধার করা অনেক কঠিন হতে পারে। তাছাড়া, বহুতল ভবনের উদ্ধার কাজে অনেক সময় হেলিকপ্টার অংশ নেয়। যখন কোন ভবনে আগুন লাগে তখন একটি জ্বলন্ত বিল্ডিং অতিরিক্ত তাপ এবং ধোঁয়া ছাড়ে যার ফলে হেলিকপ্টার তখন ভবনের কাছে ঘেঁষতেপারে না। তাই এই সমস্ত বিপদের সময় সকলের উচিত ভবন থেকে নামার চেষ্টা করা। 

লিফট ব্যবহার না করা 

আগুনের ঝুঁকি বা ভূমিকম্পের সময় জরুরি বহির্গমন হিসাবে লিফটটি ব্যবহার উচিত নয়। কারণ এটি হঠাৎ করে থেমে যেতে পারে। সুতরাং, অন্যকোনও বিপদ এড়াতে সবাইকে শান্তভাবে সিঁড়ি বেয়ে নামতে হবে। এবং মাথা ঠান্ডা রেখে বিল্ডিং ইভাকুয়েশন প্ল্যান করতে হবে।

জানালা খোলা ও ভাঙা থেকে বিরত থাকা 

জলন্ত একটি বাড়ি
জানালা খোলা বা ভাঙা থেকে বিরত থাকতে হবে

আটকে পরা অনেকে হয়তো এই বিপদের সময় ভবনের জানলা খুলতে এবং ভাঙতে চাইবে। এর ফলে ভবনের ভেতরে বাতাস ঢুকে যাবে যা আগুনের মাত্রাকে আরও বাড়িয়ে তুলতে পারে তাই জানালা খোলা বা ভাঙা থেকে বিরত থাকতে হবে। নাহলে পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে। 

বহু আগে থেকেই ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে বেশকিছু নিয়ম প্রযোজ্য ছিল। কিন্তু গত বছরের শেষ দিকে এ নিয়মে পরিবর্তন এনে, বহুতল ভবন নির্মাণের নতুন নিয়ম যুক্ত করা হয়েছে। যে নিয়মে আরোপিত হয়েছে আরো কিছু বিধি নিষেধ। যেকোন ধরনের বিপদ থেকে বাঁচতে বিল্ডিং ইভাকুয়েশন প্ল্যান বেশ সাবধানতার সাথে সম্পন্ন করতে হবে। নাহলে ঘটতে পারে যেকোন বিপদ। ভূমিকম্প এবং আগুনের ঝুঁকির কারণে সকল ভবনেই এই প্ল্যান থাকাটা বেশ জরুরী।

Write A Comment